পুষ্টিহীনতা, সাধারণ দূর্বলতা, ডায়াবেটিস, অকালবার্ধক্য, এলার্জির মত কঠিন রোগ থেকে মুক্তি পেতে চান তাহলে জেবিএল এর ‘‘রোনালেক্স খাবেন।

18th Aug 2018

আমরা আমাদের প্রাত্যাহিক জীবনে সুস্থ থাকতে চাই আর শরীরিক ভাবে সুস্থ থাকলেই কেবল সুস্থ জীবনের আনন্দ উপভোগ করা যায়। আমরা অধিকাংশ সময়ই যকৃতদোষ, রক্তস্বল্পতা, অপুষ্টি, আমিষের ঘাটতি, ডায়াবেটিস, সাধারণ দূর্বলতা, অকালবার্ধক্য, অস্থি ব্যাথা, মাংসপেশীর ব্যাথা, এলার্জি ইত্যাদি রোগে আক্রান্ত হয়ে থাকি। তাই এই সকল রোগ থেকে মুক্তি পাওয়ার উপায় রয়েছে আমাদের আশেপাশেই। জেনে নেই কিভাবে এই সকল রোগের হাত থেকে রক্ষা পেতে পারি। স্পিরুলিনাঃ স্পিরুলিনা এক প্রকার জলজ উদ্ভিদ যা সায়ানো ব্যাকটেরিয়া নামে পরিচিত। দেখতে লতা পাতার মত হলেও এর রয়েছে চমৎকার স্বাস্থ্য ও সৌন্দর্য উপকারিতা যেমনঃ স্পিরুলিনা বাত রোগীদের জন্য অত্যন্ত উপকারী। ইহা যকৃতের ক্ষতি এবং সিরোসিস এর বিরুদ্ধে কাজ করে শরীরকে রক্ষা করে, যকৃতের ব্যাথা দূর করে। স্পিরুলিনা যে কোন ধরণের ক্ষতি থেকে চোখকে রক্ষা করে, স্পিরুলিনা হজম শক্তি বৃদ্ধি করে ই-কোলাই এবং ক্যান্ডিডার মত ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়ার বৃদ্ধি দমন করে। কিডনি থেকে ভারী ধাতু দূর করে, এলার্জির উপসর্গ কমিয়ে দেয়। ডায়াবেটিস প্রতিরোধক স্পিরুলিনার মধ্যে অ্যামিনো এসিড, ভিটামিন, খনিজ পদার্থ রয়েছে। স্পিরুলিনা রক্তস্বল্পতা ও আয়রনের অভাব দূর করে এবং ইহা পুষ্টির অভাব দূর করে। এখন আমরা খুব সহজেই বুঝতে পারছি যে সুস্থ থাকার প্রয়োজনীয় উপাদানগুলো রয়েছে আমাদের আশেপাশেই। এই উপাদানগুলো সংগ্রহ করে একসাথে সেবন করুন আর যদি এগুলো সংগ্রহ করা আপনারা ঝামেলা মনে করেন, তবে আজই আপনার পাশের ফার্মেসী থেকে সংগ্রহ করুন-জেবিএল ড্রাগ ল্যাবরেটরীজ এর ‘‘রোনালেক্স’’। সুতরাং ‘‘রোনালেক্স’’ সেবন করুন যকৃতদোষ, রক্তস্বল্পতা, অপুষ্টি, আমিষের ঘাটতি, ডায়াবেটিস, সাধারণ দূর্বলতা, অকালবার্ধক্য, অস্থি ব্যাথা, মাংসপেশীর ব্যাথা, এলার্জি থেকে মুক্ত থাকুন। উপাদানঃ প্রতি ক্যাপসুলে আছে- স্পিরুলিনা মিহি চূর্ণ ৪৫০ মিঃগ্রাঃ এবং অন্যান্য উপাদান পরিমাণ মত। নির্দেশনাঃ যকৃতদোষ, রক্তস্বল্পতা, অপুষ্টি, আমিষের ঘাটতি, ডায়াবেটিস, সাধারণ দূর্বলতা, অকালবার্ধক্য, অস্থি ব্যাথা, মাংসপেশীর ব্যাথা, এলার্জি থেকে মুক্তি দেয়। সেবনবিধিঃ ২-৩ টি ক্যাপসুল দিনে ২-৪ বার অথবা চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী সেব্য। পরিবেশনাঃ প্রতি বক্সে ৪৫=২০ টি করে ক্যাপসুল। প্রস্তুতকারকঃ জেবিএল ড্রাগ ল্যাবরেটরীজ (ইউনানী) গাজীপুর, বাংলাদেশ।